ঢাকা, বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৮

বিএনপি থেকে ছিটকে পড়েছেন মির্জা ফখরুল

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২:১৮, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১  

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

অসুস্থতার দোহাই দিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি সিঙ্গাপুর যাবার এক সপ্তাহ পর কৌশলে লন্ডন চলে যান বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। জানা যায়, ১০ ফেব্রুয়ারি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের সঙ্গে গোপন বৈঠক করে ১২ই ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশে চলে আসেন।

তবে বিএনপির অভ্যন্তরীণ একটি সূত্র জানিয়েছে, লন্ডন থেকে তারেক রহমানের সঙ্গে দেখা করে বাংলাদেশে আসার পর থেকে মির্জা ফখরুলকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এ কয়দিনে তাকে বাসা থেকে এক মিনিটের জন্যও বের হতে দেখা যায়নি।

এ প্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, মির্জা ফখরুলের মতিগতি বুঝতে পারছি না। তিনি হয়তো বিএনপি থেকে স্বেচ্ছায় সরে যাচ্ছেন। অথবা তাকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তাকে যদি সরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, তবে বিষয়টা খুব একটা অযৌক্তিক হবে না। কারণ তিনি শিক্ষক হিসেবে যতোটুকু সফল ছিলেন, একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে ততোটাই অসফল। কথায় কথায় কান্নাকাটি ছাড়া তিনি কিছুই করতে পারেন না। তা বর্তমানে সকলেরই জানা। আর এই কারণটি তারেক রহমান হয়তো উপলব্ধি করতে পেরেছেন। আর মির্জা ফখরুলের লন্ডন সফরের পর এমন চুপ থাকা তারই প্রমাণ দেয়।

এদিকে, বিগত তিন বছর যাবত মির্জা ফখরুল দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে সঙ্গে জুনিয়র নেতাদেরও তোপের মুখে রয়েছেন। দলে তার খুব একটা কর্তৃত্ব এবং নিয়ন্ত্রণ নেই। দলের সিনিয়র নেতারা একযোগে মহাসচিবকে সরিয়ে দেওয়ার দাবি তুলেছেন। বিএনপি চেয়ারপারসনও সিনিয়র নেতাদের দাবির সঙ্গে একমত। কিন্তু নতুন মহাসচিব কে হবেন, এ নিয়ে দলের সিনিয়ররা একমত নন।

এ বিষয়ে মির্জা ফখরুলের ঘনিষ্ঠরা বলছেন, মির্জা ফখরুলের পদত্যাগের খবর চাউর হবার পর থেকে ফুরফুরে আমেজে আছেন বিএনপি অন্যান্য নেতারা। অনেকে দাবি করেন দলের নেতৃত্ব দুর্বল হলে কোনো কিছুই সবল হয় না। তাছাড়া বর্তমান ধারার রাজনীতির জন্য মানানসই নন ফখরুল। নির্বাচনের পরপরই তিনি রাজনীতি ছাড়তে চেয়েছিলেন। তাই সিনিয়র সকল নেতাই চায় বিএনপির নেতৃত্বে কিছুটা হলেও পরিবর্তন আসুক।

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়