ঢাকা, রোববার   ১৯ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪৩১

ডেঙ্গু জ্বর থেকে দূরে থাকার উপায়

হেলথ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০:৪৪, ২৪ অক্টোবর ২০২২  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

ডেঙ্গু, এডিস মশাবাহিত একটি ভাইরাস ঘটিত জ্বর রোগ। ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাবের কারণে উদ্বিগ্ন মানুষ। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে শরীরে ব্যাথা হয়, লাল গুটি দেখা দেয়, মাংসপেশী ও হাড়ের জোড়াতেও ব্যাথা হয়। চূড়ান্ত পর্যায়ে গেলে রক্তক্ষরণের ফলে এ রোগে মৃত্যুও হতে পারে। প্রথমবারের ধাক্কা সামলে উঠলেই যে মুক্তি তা কিন্তু নয়। ডেঙ্গু রোগে কেউ দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হলে তা প্রথমবারের চেয়েও মারাত্মক হতে পারে৷।

ডেঙ্গুর জীবাণু বহনকারী এডিস মশার দেহে সাদা কালো ডোরাকাটা দাগ থাকে, যে কারণে এটিকে টাইগার মশা বলা হয়। এই জাতীয় মশা মাঝারি আকারের হয়ে থাকে এবং এর অ্যান্টেনা বা শুঙ্গটি কিছুটা লোমশ দেখতে হয়। পুরুষ মশার অ্যান্টেনা স্ত্রী মশার চেয়ে অপেক্ষাকৃত বেশি লোমশ দেখতে হয়।

ডেঙ্গু মশা দিনের বেলায় সব চেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে। বলা হয় যে সকাল ও বিকেলে সংক্রমণের সম্ভাবনা সব চেয়ে বেশি। গবেষণা অনুসারে, মশা দিনের বেলায় সব চেয়ে বেশি সক্রিয় থাকে, সূর্যোদয়ের প্রায় ২ ঘন্টা পরে এবং সূর্যাস্তের কয়েক ঘন্টা আগে। যদিও, এডিস ইজিপ্টাই মশা সূর্যাস্তের পরেও মানুষকে কামড়াতে পারে। ডিম পাড়ার সময়কালে এডিস মশা একাধিক বার কামড়াতে পারে। ডিম পাড়ার পর ডিমগুলি বেশ কয়েক মাস ধরে পড়ে থাকে। পানির সংস্পর্শে এলেই সেগুলো থেকে বাচ্চা বের হয়।

ডেঙ্গু মশার কামড়ের আরেকটি বড় বৈশিষ্ট্য হল সেই জায়গা, যেখানে মশা একজন মানুষকে কামড়ায়। ডেঙ্গু সংক্রমিত মশা শরীরের বিভিন্ন অংশ, যেমন পায়ের গোড়ালি, কনুইয়ের চারপাশে কমড়ায়।

এডিস মশা একাধিক ব্যক্তিকে কামড়ায়। তাই ভাইরাস জ্বরে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির শরীর থেকে এডিস মশার মধ্যে ভাইরাস সংক্রমণ হওয়ার পর ঐ মশার কামড়ে ডেঙ্গু হয়।

ডেঙ্গু জ্বর হলে রক্তে অনুচক্রিকার সংখ্যা কমে যায়। সেই সঙ্গেই ডায়রিয়ার কারণে ডিহাইড্রেশন হয়। এই রোগে শরীরে প্রচুর পানির প্রয়োজন। ডেঙ্গি হলে তাই বাচ্চা, প্রাপ্তবয়স্ক সকলেরই ডায়েটে প্রচুর পরিমাণে পানি বা তরল খাবার রাখা প্রয়োজন। এ ছাড়া খাওয়াদাওয়ার ক্ষেত্রে কিছু জিনিস মাথায় রাখলে দুর্বলতা খানিক কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে শরীরের রোগপ্রতিরোধ শক্তি বাড়ানোর ক্ষেত্রে বেশি করে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। এ ক্ষেত্রে ডায়েটের উপর দিতে হবে বাড়তি নজর। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে ডায়েটে কী রাখবেন, রইল সে হদিস।

ড্রাগন ফল

চিকিৎসকদের মতে, ড্রাগন ফলে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট আছে। যা রক্তে অণুচক্রিকা বা প্লাটিলেটের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। ফলে ডেঙ্গুর চিকিৎসায় এই ফল খুবই কার্যকর। অনেক রোগী সুফল পেয়েছেন।

টক ফল

টকজাতীয় ফল ভিটামিন সি-তে ভরপুর। এই ভিটামিন শ্বেত রক্তকণিকা গঠণে সাহায্য করে। শরীরের রোগ প্রতিশোধ ক্ষমতা বাড়ায় এই কণিকা। তাই এই সময়ে খাদ্যতালিকায় কিউয়ি, আঙুর, কমলালেবু-সহ বিভিন্ন ধরনের লেবু রাখতেই হবে।

রসুন

রান্নার স্বাদ বাড়াতে হেঁশেলে রসুন রাখতেই হয়। তবে শরীরের রোগপ্রতিরোধ শক্তি বাড়াতেও এই উপাদান দারুণ উপকারী। সংক্রমণ থেকে দূরে থাকতে তাই এই সময়ে ডায়েটে বেশি করে রসুন রাখতে হবে।

বেদানা

প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে বেদানায়। ফলে দেহের শক্তি বাড়ে, অণুচক্রিকার সংখ্যা বাড়াতেও সাহায্য করে এটি।

দই

এই সময়ে দৈনন্দিন খাবারে এই সময়ে দইয়ের মতো প্রোবায়োটিক রাখা জরুরি। এর ফলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে, ‌শরীর দূষণমুক্ত করতে সাহায্য করে।

ব্রকোলি

ব্রকোলিতে প্রচুর পরিমাণে থাকে ভিটামিন কে, যা অণুচক্রিকা পুনরুৎপাদনে সাহায্য করে। অন্যান্য পুষ্টিগুণেও সমৃদ্ধ ব্রকোলি। এই সময়ে রোজের ডায়েটে এই সব্জি রাখতেই হবে।

পেঁপে পাতার রস

পুষ্টিবিদদের মতে, পেঁপে পাতার রস রক্তে অনুচক্রিকার সংখ্যা বাড়াতে সাহায্য করে। ডেঙ্গির প্রকোপে শরীরে অনুচক্রিকার মাত্রা অস্বাভাবিক হারে হ্রাস পায়। পেঁপে পাতার রস বানিয়ে জলের সঙ্গে মিশিয়ে দিনে তিন থেকে চার বার খেতে পারলেই রক্তে অনুচক্রিকার মাত্রা স্বাভাবিক হয়।

কিউয়ি

চিকিৎসকদের মতে, ডেঙ্গি হলে কিউয়ি ফল খাওয়া খুব স্বাস্থ্যকর। এই ফল রক্তে অনুচক্রিকার মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে। ফলে রোগী দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন।

ডাবের পানি

ডেঙ্গু জ্বরের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হিসাবে শরীরে পানির ঘাটতি হয়। তাই এই সময় ডাব ‌বা নারিকেলের পানি খেতে হবে। এতে দেহে পানির ঘাটতিও মেটাবে, আবার পুষ্টিগুণ ও বিভিন্ন ইলেক্ট্রোলাইটে সমৃদ্ধ এই নারিকেলের পানি দৈহিক শক্তিও বাড়াবে।

সবজি

সুস্থ থাকার জন্য সবজি খাওয়ার বিকল্প নেই। সবজি খেলে শরীরে ফাইবারের ঘাটতি পূরণ হয়। ফাইবার শরীর ভালো রাখতে কাজ করে। সেইসঙ্গে সবজিতে থাকে পর্যাপ্ত ভিটামিন, খনিজ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যে কারণে পর্যাপ্ত সবজি খেলে ডেঙ্গুকে কাবু করা সহজ হয়।

পানি

ডেঙ্গু হলে শরীরে অনেক ধরনের সমস্যা তৈরি হতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দেয়। যে কারণে এই জ্বরে আক্রান্ত হলে দিনে অন্তত তিন লিটার পানি পান করতে হবে। সেইসঙ্গে খেতে হবে তাজা ফলের রস, আখের রস ইত্যাদি। এতে দ্রুত সুস্থ হওয়া সহজ হবে।

মাছ ও ডিম

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে নিয়মিত মাছ ও ডিম খাওয়া জরুরি। ডেঙ্গু রোগীর জন্যও এটি অবশ্য করণীয়। এক্ষেত্রে খেতে হবে ছোট মাছ। এতে তেল কম ও প্রোটিন বেশি থাকে। শরীরে শক্তি জোগানোর জন্য প্রোটিন খুব জরুরি। সেইসঙ্গে ডিমেও থাকে প্রচুর প্রোটিন। এছাড়া থাকে ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি-সহ নানা উপাদান। তাই ডেঙ্গু থেকে দ্রুত সুস্থ হতে মাছ ও ডিম খান নিয়মিত।

মুরগির মাংস

ডেঙ্গু রোগীদের ক্ষেত্রে মুরগির মাংস খাওয়া উপকারী। মুরগির মাংসে থাকে যথেষ্ট প্রোটিন। এছাড়া ফ্যাট থাকে অনেক কম। যে কারণে শরীরে শক্তি পাওয়া যায় পর্যাপ্ত। মাসল লস হয় না। তাই দ্রুত সুস্থ হতে মুরগির মাংস খান। অতিরিক্ত মসলাদার নয়, অল্প মসলায় রান্না করা বা মুরগির মাংসের স্যুপ খান।

সতর্ক থাকবেন যেভাবে

দিনের বেলা পায়ে মোজা ব্যবহার করতে পারেন। ফুল হাতার জামা পরুন। শিশুদের হাফপ্যান্টের বদলে ফুলপ্যান্ট বা পায়জামা পরাতে হবে। দিনে ও রাতে ঘুমানোর সময় মশারি ব্যবহার করতে হবে। মশা যেন না কামড়াতে পারে এজন্য মশাবিরোধী বিভিন্ন ক্রিম বা তেল শররের খোলা স্থানে ব্যবহার করুন। দরজা-জানালায় নেট লাগাতে হবে। মশা তাড়াতে স্প্রে, লোশন, ক্রিম, কয়েল, ম্যাট ব্যবহার করতে পারেন। ফুলদানি, অব্যবহৃত কৌটা, বাড়িঘরের আশপাশে যে কোনে পাত্রে জমে থাকা পানি পরিষ্কার করুন। ঘরের বাথরুমে কোথাও পানি জমাবেন না। বাড়ির ছাদে বাগানের টবে বা পাত্রে যেন পানি জমে না থাকে। প্রয়োজনে প্রতিদিন পানি বদলে ফেলুন। বাড়ির আশপাশের ঝোপঝাড়, জঙ্গল, জলাশয় ইত্যাদি পরিষ্কার রাখুন।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়