ঢাকা, বুধবার   ২১ এপ্রিল ২০২১ ||  বৈশাখ ৭ ১৪২৮

কেজি দরে চাকরির বই!

নিজস্ব ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:০২, ৩ মার্চ ২০২১  

অনলাইন ছবি

অনলাইন ছবি

দৈনন্দিন জীবনে সাধারণত চাল, ডাল, পেঁয়াজ, রসুন, তরিতরকারি কেজি দরে কিনেছেন। কিন্তু কখনো কি বই কেজি দরে কিনেছেন? হয়তোবা কিনেননি। প্রয়োজনীয় বই যদি কেজিতে কিনতে পাওয়া যায়, দামও যদি হয় নাগালের মধ্যে থাকে, সেই সুযোগ মিস করবেন না কেউ। এমনই সুযোগ রয়েছে রাজশাহী নগরীর একটি লাইব্রেরিতে। লাইব্রেরিটির নাম ‘ব্যতিক্রম লাইব্রেরি’। এখানে প্রয়োজনীয় বই বিক্রি হচ্ছে কেজি দরে।

রাজশাহী শহর থেকে ৫ কিলোমিটার পূর্বে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোদপুর বাজারের পশ্চিমে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের পাশেই এই লাইব্রেরি অবস্থিত। বিনোদপুর বাজার থেকে একটু পশ্চিমে এসে হাতের বাম দিকে দেখা যাবে ‘ব্যতিক্রম লাইব্রেরি’র ব্যানার। ব্যানারের পাশে গলি ধরে এগোলেই চোখে পড়বে লাইব্রেরিটি। 

এখানে গল্প, উপন্যাস, বাচ্চাদের বই, মাধ্যমিক, উচ্চ-মাধ্যমিক, চাকরি-ভাইভা, ব্যাংক জবসহ বিভিন্ন ধরনের বইয়ের সমাহার। প্রতি কেজি বই বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা এবং মাসের শেষ দিনে ৫০ টাকা কেজি। তবে করোনার পূর্বে বইয়ের দাম ছিলো আরো কম। প্রতি কেজি বই বিক্রি হতো মাত্র ৬০ টাকায়, আর মাসের শেষ দিনে ছিল ৩০ টাকা।

সরেজমিনে দেখা যায়, লাইব্রেরির ভেতরে বিভিন্ন ধাপে ধাপে সাজানো রয়েছে বইগুলো। মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, বিশ্ববিদ্যালয়ের বইগুলো আলাদা করে সাজানো রয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের পছন্দের ও প্রয়োজনীয় বই খুঁজতে ব্যস্ত সময় পার করছে। অনেক সময় ধরে খুঁজে সংগ্রহ করা প্রয়োজনীয় বইগুলো দোকানে রাখা ডিজিটাল মেশিনে ওজন করে নিচ্ছেন। মেশিন চেপে দাম বলে দিচ্ছেন দোকানি।

কথা হয় এই লাইব্রেরিতে বই কিনতে আসা আছিয়া খাতুনের সঙ্গে। তিনি বলেন, মাঝেমাঝেই এখানে বই কিনতে আসি। পছন্দের বই এখান থেকে সংগ্রহ করা যায়। অল্প টাকায় বেশ ভালো বই পাওয়া যায়।

বই কিনতে আসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী মিনহাজ আবেদিন বলেন, একাডেমিক বই কিনতে এসেছিলাম। বেশকিছু বই পেলাম। অন্যান্য লাইব্রেরিতে এই বইগুলো বেশি দামে কিনতে হতো। এখানে সেই বইগুলো কমদামে পেয়ে ভালোই লাগছে।

বই বিক্রেতা মিজানউদ্দিন জানান, প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ক্রেতারা বই কিনতে আসেন। সকালের তুলনায় বিকেলে বেশি ভিড় থাকে। বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে বইয়ের গ্রাহক কিছুটা কম। তবে করোনাকালের আগে অনেক সময় বই কেনার জন্য দোকানের সামনে লাইন লেগে যেতো।

প্রায় পাঁচ বছর আগে শিক্ষার্থীদের কল্যাণের উদ্দেশ্যে লাইব্রেরিটি প্রতিষ্ঠা করেন বদর উদ্দিন। তিনি জানান, রাজশাহী শহরসহ বিভিন্ন পুরোনো লাইব্রেরি থেকে বই সংগ্রহ করা হয়। পরে বইগুলো প্রতি কেজি ১০০ টাকা এবং মাসের শেষ দিনে ৫০ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। 

তিনি আরো জানান, বর্তমানে লাইব্রেরির দুটি শাখা আছে। বই বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সময় ও শ্রমের অপচয় কমাতে মূল লাইব্রেরি থেকে ভালো মানের বইগুলো বাছাই করে অপর শাখায় রাখা হয়েছে।

বদরউদ্দিনের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা (অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক লুৎফর রহমান। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া বেশিভাগ শিক্ষার্থী মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান। একাডেমিক অথবা চাকরির প্রস্তুতির জন্য অনেক বই প্রয়োজন, যা একজন গরীব শিক্ষার্থীর পক্ষে কেনা কষ্টকর। শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় এসব বই ব্যতিক্রম লাইব্রেরিতে পাওয়া যাচ্ছে, এটা খুবই ভালো একটা বিষয়। এই উদ্যোগটি বই পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন তিনি।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়