ঢাকা, সোমবার   ১৭ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৪ ১৪৩১

কবর আখিরাতের প্রথম পর্ব

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:২০, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

কবর আখিরাতের প্রথম পর্ব

কবর আখিরাতের প্রথম পর্ব

মৃত্যু-পরবর্তী প্রথম ধাপই হলো কবর। কবর থেকে পুনরুত্থান পর্যন্ত জীবনকে বলা হয় আলমে বারজাখ। বারজাখের ভয়াবহতা থেকে মুক্তি পেলে পরবর্তী পরীক্ষাগুলো হালকা হবে। উসমান (রা.) বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, ‘কবর হচ্ছে আখিরাতের প্রথম পর্ব।যে এর আজাব থেকে মুক্তি পাবে, তার জন্য পরবর্তী পর্বগুলো সহজ হয়ে যাবে। আর যে মুক্তি পাবে না, তার জন্য পরবর্তী ধাপগুলো আরো কঠিন হবে।’ (তিরমিজি, হাদিস : ২৩০৮)

কবরের অবস্থা

কারো কবর জাহান্নামের একটি গর্ত। কারোটা জান্নাতের একটি বাগিচা।

কবরের আজাব কোরআন-সুন্নাহ ও ইজমা দ্বারা প্রমাণিত। দুই পাশের মাটির চাপ, সাপ-বিচ্ছুর দংশন, হাতুড়ি দিয়ে ফেরেশতাদের বিশাল আঘাত ও প্রজ্বলিত অগ্নির মতো ভয়ংকর শাস্তি আছে কবরে। (তিরমিজি, হাদিস : ২৪৬০)
তবে মুমিন বান্দার জন্য কবর হবে প্রশান্তির বিছানা। জান্নাতের বাগান।

এক শান্তিময় ঘুমে কেটে যাবে তার বারজাখের জীবন। (মুসনাদ আহমদ, হাদিস : ১৮৫৩৪)
তোমার রব কে কবরের প্রথম প্রশ্নটি আপাতদৃষ্টিতে খুবই সহজ মনে হয়। কিন্তু প্রশ্নটি জটিল। বেশির ভাগ মানুষ এ ব্যাপারে উদাসীন। দুনিয়ায় আমরা যদি তাওহিদুর রুবুবিয়্যা (প্রতিপালনে একত্ববাদ) স্বীকার না করি, তাহলে সেদিন এ প্রশ্নের জবাব দেওয়া সম্ভব হবে না।


যারা মানুষকে রবের আসনে বসিয়েছে তারাও এ প্রশ্নের জবাবে বলবে, লা আদরি অর্থাৎ আমি কিছুই জানি না। মানুষ মানুষকে কিভাবে রব বানায়? আল কোরআনে এসেছে, ‘তারা তাদের ধর্মীয় গুরু ও নেতাদের (মান্য করার দিক থেকে দেবতা) হিসেবে গ্রহণ করেছে।’ (সুরা তাওবা, আয়াত : ৩১)

তোমার দ্বিন তথা জীবনব্যবস্থা কী

কবরের দ্বিতীয় প্রশ্নের জবাব তো সবারই জানা। কিন্তু এর বাস্তবতা অতটা সহজ নয়। তারাই এর জবাব দিতে পারবে, যারা পরিপূর্ণভাবে ইসলামকে আঁকড়ে ধরেছে। আর যারা দুনিয়ায় ইসলামকে জীবনব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করেনি তারা বলবে, লা আদরি অর্থাৎ আমি কিছুই জানি না। আমরা তো সবাই নামধারী মুসলিম। নামেমাত্র ইসলাম পালন করি। কিন্তু বাস্তব জীবনে মানবরচিত বিধান জীবনব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করেছি। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে ব্যক্তি ইসলাম ছাড়া অন্য কিছু জীবনব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করবে, তা কখনো কবুল করা হবে না, বরং সে আখিরাতে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত : ৮৫)

আমরা কি পারব উক্ত প্রশ্নের জবাবে উত্তীর্ণ হতে? আজ দুনিয়ায় ইসলামী জীবনব্যবস্থা উপেক্ষা করে চললে সেদিন এ কথা জবান দিয়ে বের হবে না, দ্বিনি আল ইসলাম অর্থাৎ আমার জীবনব্যবস্থা ইসলাম।

তোমার নবী কে

কবরের সর্বশেষ প্রশ্নে আমরা কি কামিয়াব হতে পারব? দুজন ফেরেশতা এসে জিজ্ঞেস করবে, তোমার নবী কে, আদর্শ পুরুষ কে ছিল, তুমি কার সুন্নত তথা রীতিনীতির অনুসরণ করতে? যারা গায়ক-গায়িকা, নায়ক-নায়িকা ও খেলোয়াড়দের আদর্শ অনুসরণ করছে তারাও এ প্রশ্নের জবাবে বলবে, লা আদরি। যারা নবীর সুন্নাহ বাদ দিয়ে বিধর্মীদের লাইফস্টাইল গ্রহণ করছে তারাও এ পর্বে অনুত্তীর্ণ হবে। শুধু যারা রাসুল (সা.)-এর সিরাত ও সুন্নাহ গ্রহণ করেছে এবং বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করেছে, তারাই এ প্রশ্নের জবাব দানে সক্ষম হবে।

মুমিনের করণীয়

কবরের তিন প্রশ্নের জবাব আরবিতে মুখস্থ করে নিলেই যথেষ্ট নয়। যারা এ তিন প্রশ্নের বিষয়বস্তুর ওপর দুনিয়াতে আমল করেছে তাদের জবান থেকে আল্লাহ তাআলা জবাব বের করে দেবেন। প্রশ্নোত্তর জানারও প্রয়োজন নেই। আর যারা আল্লাহকে এক রব বলে স্বীকার করেনি, ইসলামকে পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থা হিসেবে মেনে নেয়নি এবং মুহাম্মদ (সা.)-কে আদর্শ পুরুষ হিসেবে গ্রহণ করেনি, তাদের জবান থেকে সেদিন একটি বাক্যই উচ্চারিত হবে, লা আদরি অর্থাৎ আমি কিছুই জানি না। (মুসতাদরাক হাকেম, হাদিস : ১০৭)

সুতরাং কবরের আজাব থেকে বাঁচতে একজন মুসলমানকে প্রকৃত মুসলমানের জীবন গ্রহণ করতে হবে। মহান আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন।

সর্বশেষ
জনপ্রিয়